ইউরোপ স্বপ্নের দেশ !! করোনায় থেমে নেই অবৈধ পথ !!

সমুদ্রপথে গন্তব্যে পৌঁছানোর সম্ভাবনা খুব কম। তবে লোকেরা তাদের ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় ভূমধ্যসাগরকে জয় করার চেষ্টা করছে বলে মনে হচ্ছে। নিরাপদ বিপদ জেনে এক শ্রেণির মানুষ বারবার মৃত্যুর গর্তে প্রবেশ করছে। করোনার সমুদ্র দিয়ে ইউরোপ পাড়ি দেওয়া থামেনি।

লিবিয়ার ভূমধ্যসাগর নাম বিভোর লোকদের দেওয়া নাম, যারা বাংলাদেশ থেকে লিবিয়ায় বিভিন্ন বিপদ কাটিয়ে স্বেচ্ছায় ইউরোপে যে স্বপ্ন দেখেছিল তার বেশিরভাগ দিকে এগিয়ে চলেছে। কয়েক দশক ধরে অভিবাসীরা এই সমুদ্র পেরিয়ে বিপজ্জনকভাবে ইউরোপে পৌঁছানোর চেষ্টা করেছে।

৫ শতাধিকেরও বেশি অভিবাসী সম্প্রতি ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে ইতালি চলে গেছে। এর মধ্যে ৩৬২ জন বাংলাদেশের নাগরিক । নয়টি জাহাজ সম্প্রতি তিউনিসিয়া থেকে ১১৬ জন অভিবাসী নিয়ে ইতালীয় ল্যাম্পেপুসা দ্বীপে পৌঁছেছে। আরও ৪৩৪ জন মানুষ তিউনিসিয়া থেকে সাতটি ছোট নৌকায় এবং লিবিয়া থেকে দুটি বড় নৌকোয় ইতালি পৌঁছেছিলেন।

স্থানীয় একটি পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইতালি অবৈধ অভিবাসনের হার গত বছরের তুলনায় কয়েকগুণ বেড়েছে। এর কারণ হ’ল গ্রীষ্মে সমুদ্রকে শান্ত রাখতে বিভিন্ন দেশের অভিবাসীরা এই মৌসুমের শুরু থেকেই অবৈধভাবে ইতালি যাচ্ছেন।

এদিকে, আইওএম আরও বলেছে যে গত দু’দিনে একটি নৌকায় ৯৫ জন এবং অন্য নৌকায় ২৬ জন লিবিয়া থেকে মোট ৩৬২ অভিবাসনপ্রত্যাশী বাংলাদেশের নাগরিক।

সংস্থাটির মুখপাত্র ফ্লাভিও ডি গিয়াকোমো এএফপিকে বলেছেন, আগত অভিবাসীদের সংখ্যা গত বছরের তুলনায় বেশি, তবে তিন-চার বছর আগে উল্লেখ না করার পরেও দু’বছর আগের তুলনায় অনেক কম।

চলতি বছর এ পর্যন্ত প্রায় ৮ হাজার অভিবাসী ইতালি এসেছেন। একই বছর গত বছর এই সংখ্যা ছিল তিন হাজার। এবং ২০১৮ সালে এই সংখ্যা ছিল প্রায় ১৭ হাজার।

অনুপ্রবেশকারীদের আফ্রিকা ও আরবের বিভিন্ন দেশ থেকে তুরস্ক বা গ্রিসে নৌকায় করে ভূমধ্যসাগর বা আটলান্টিক মহাসাগর পেরিয়ে স্পিডবোট বা ট্রলারে সমাহিত করা হচ্ছে। আফ্রিকার দেশ মারোটানিয়া রোটের সাহারা মরুভূমির মধ্য দিয়ে পর্তুগালে প্রবেশের চেষ্টা করার সময় অনেকে সাহারা মরুভূমির অ্যাক্সেস অ্যাক্সেসের পথ অতিক্রম করে অনাহারে মারা গিয়েছিলেন।

তাদের মধ্যে কয়েকজন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কর্তৃক অবৈধভাবে প্রবেশ করতে গিয়ে গ্রেফতার হয়ে কারাগারে কারাগারে বন্দি জীবন কাটাচ্ছে। আবার অনেকে দালালদের কবলে পড়ে জিম্মি জিম্মি জীবন যাপন করছেন। মুক্তিপনের টাকার জন্য দেশের ভিটে মাটি বিক্রি করে টাকা দিয়েও মুক্তি মিলছে না।

Related News

Add Comment