কুয়েতে বৈধ আকামাধারী প্রবাসীদের প্রবেশে কোনো বাধা নেই।

কুয়েত সিটি ১০ নভেম্বর: কুয়েতের রেসিডেন্সি বিষয়ক জেনারেল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন নিশ্চিত করেছে যে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের দেওয়া স্বাস্থ্যের প্রয়োজনীয় নির্দেশাবলী অনুসারে, বৈধ আকামা রয়েছে এমন প্রবাসীদের কুয়েতে প্রবেশের অধিকার রয়েছে।

“যেসকল প্রবাসী বর্তমানে কুয়েতের বাইরে অবস্থান করছে তারা যদি ৩১ শে ডিসেম্বরের মধ্যে কুয়েতে আবারও প্রবেশ না করে তাহলে তাদের আর প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে না“, এবং এটি সম্পূর্ণ মিথ্যা বা গুজব বলে জানিয়েছে কুয়েতের জেনারেল রেসিডেন্সি বিষয়ক বিভাগ।

দেশে “প্রবাসীদের অনুপস্থিতি সম্পর্কিত আইনে” নতুন কিছু সংযুক্ত হয়নি।

এছাড়া বর্তমানে যারা কুয়েতের বাইরে আছেন তারা অনলাইনে তাদের আকামা নবায়ন করতে পারবেন বলে এ বিষয়ে নিশ্চিত করেছে কুয়েতের রেসিডিয়ান্সি বিভাগ।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় থেকে যদি দেশের বাইরে থাকা প্রবাসীদের বিরুদ্ধে নতুন কোনো ব্যবস্থার সিদ্ধান্ত নেয়,তাহলে অবশ্যই আনুষ্ঠানিকভাবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ প্রশাসনের মাধ্যমে ঘোষণা করে জানানো হবে।

আল এম-বি-এ দৈনিক এর একটি প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে যে, যদি কারও বয়স ৬০ বছরের বেশিও হয় এবং যদি তারা আকামা সংক্রান্ত আইনের ২২ নম্বর আর্টিকেল (পারিবারিক ভিসা) এর শর্ত পূরণ করে তবে তাদেরকেও তাদের পরিবারের সাথে দেখা করার অনুমতি দেওয়া হবে।

জেনারেল রেসিডেন্সী বিষয়ক অ্যাফেয়ার্সগুলি আরও বলেছে যে, “যেসকল প্রবাসিদের বৈধ আকামা রয়েছে তারা সকলেই কুয়েতে প্রবেশের অধিকারী এবং কুয়েতে প্রবেশ করতে পারবে।তবে স্বাস্থ্যের প্রয়োজনীয়তা অবশ্যই মানততে হবে।

বিশেষ করে ৩৪ টি নিষিদ্ধ দেশের নাগরিকদের কুয়েতে প্রবেশের আগে ১৪ দিনের জন্য নিষিদ্ধ দেশে। থাকতে হবে না । আর বর্তমানে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য সবাইকে “ভ্রমণ/সফর” এড়িয়ে চলা উচিত।“

সূত্রটি উল্লেখ করেছে যে সমস্ত ধরণের রেসিডেন্সি পারমিট, বিশেষত আর্টিকেল ২২, অনলাইনে নবায়ন করা হয়েছে এবং যাদের বাবা-মা এর সন্তানেরা প্রবাসে এসে পড়াশোনা করছেন তাদের আশ্বস্ত করে বলা হয়েছে যে, ৬ মাসেরও বেশি সময় কুয়েতের বাইরে থাকার পরেও আবাস বাতিল হওয়ার কোনও আশঙ্কা নেই।

ভিজিট ভিসা বা ওয়ার্ক ভিসা খোলার বিষয়ে সূত্রটি এ পর্যন্ত জানিয়েছে যে, তাদের কাছে এ বিষয়ে আর কোনো নির্দিষ্ট খবর নেই । সাধারণত মন্ত্রিপরিষদ কর্তৃক এ জাতীয় সিদ্ধান্ত জারি করা হয়। আরো উল্লেখ্য করা হয় যে, ভিজিট ভিসাকে রেসিডেন্সি এর মাধ্যমে অনুমোদন দ্বারা নবায়ন করতে হবে।

এই করোনা মহামারীতে মানবিক দিক দিয়ে ভিজিট ভিসার মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল।
মন্ত্রিপরিষদের রেজোলিউশন নং ৫৯৮/২০২০, যা রেফারেন্সের ৩ মাসের মেয়াদ বাড়ানো এবং ভিজিট ভিসার মন্ত্রিসভায় রেজুলেশন নং ৪৪৪/২০২০-এর আওতায় অনুমোদিত হয়েছিল সেপ্টেম্বর ২০২০-এ এবং এই মাসের ৩০ শে নভেম্বর শেষ হবে। এটি আর বাড়ানো হবে না তাই মেয়াদোত্তীর্ণ ভিসার মালিকদের অবশ্যই তাদের আকামা সংশোধন করতে হবে এবং তাদের কর্মীদের উপর চাপানো আইনী প্রক্রিয়া শেষ করে অবশ্যই কুয়েত ত্যাগ করতে হবে।

উৎসটি এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে যে, প্রবাসীদের তাদের আকামা পুনর্নবীকরণ হবে তা নিশ্চিত করতে তাদের পাসপোর্টের বৈধতা পরীক্ষা করতে হবে। পাসপোর্টের মেয়াদ আকামা নবায়নের সময়কালের চেয়ে বেশি হওয়া বাধ্যতামূলক

Related News

Add Comment