কুয়েতে ৩৪ দেশের সরাসরি ফ্লাইট বন্ধ থাকায়, আর্থিক ক্ষতি হল ১০০ কোটি দিনার!

কুয়েত সরকার কোভিড১৯ ভ্যাকসিন চালু হওয়ার অপেক্ষায় বিমানবন্দরগুলিতে সরাসরি ৩৪ টি দেশ থেকে আসা ফ্লাইট গুলি বন্ধ রেখেছিল। এবং এ সিদ্ধান্তের কারণে বিমান সংস্থাগুলি আর্থিকভাবে অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রতিবেশী উপসাগরীয় আরব রাষ্ট্রগুলি তাদের বিমানবন্দরগুলি চালু করে করোনার অর্থনৈতিক সঙ্কটকে কিছুটা হলেও কাটিয়ে উঠেছে। আর অন্যদিকে কুয়েতের বিমান সংস্থাগুলি স্বাস্থ্য বিধি মেনে কুয়েতের আকাশসীমা খোলার দাবি জানালেও, সরকার তা করেনি।


কুয়েত করোনাকালিন সময়ে নিষিদ্ধ তালিকায় তালিকাভুক্ত ৩৪ টি দেশের সরাসরি বিমানের ফ্লাইটগুলি বন্ধ রেখেছিল ।তাই, নিষিদ্ধ দেশগুলির যাত্রীদের ১৪ দিন পার্শ্ববর্তী কোনো দেশে কাটাতে হয়েছিল এবং তারপর তারা কুয়েতে প্রবেশের অনুমতি পেয়েছিল। এর মাধ্যমে দুবাই এবং অন্যান্য দেশ আর্থিক ভাবে লাভবান হয়েছিল।

ফেডারেশন অফ ট্যুরিজম অ্যান্ড ট্রাভেল অফিস-এর সদস্য আবদুল রহমান আল-খারাফির মতে, এই সিদ্ধান্তের ফলে কুয়েতের যে ক্ষতি হয়েছিল তা প্রায় ১০০ কোটি কুয়েতি দিনার এর সমমান।
প্রায় ১৬ লক্ষ প্রবাসী কুয়েতে ফিরে আসেন, এবং প্রতিটি যাত্রী দুবাইয়ে গড়ে ৬ হাজার দিনার ব্যয় করেন। আল খারাফি আরও জানান যে, এই অর্থ সোয়াবস(করোনা কিট) এর মূল্য পরিশোধ করে স্বাস্থ্য খাত ছাড়াও বিমান চলাচল, হোটেল এবং রেস্তোঁরাগুলিতে বিনিয়োগ করা যেত। স্বাস্থ্য সংক্রান্ত এইসব সিদ্ধান্তের জন্য কুয়েত ভারী লোকসানের মুখোমুখি হয়েছে বলে জানা যায়।


করোনাকালে কুয়েতে, ১৪ ই মার্চ থেকে ৩১ জুলাই এর সময়কালে ভ্রমণ ও পর্যটন খাতের ক্ষতি হয়েছে প্রায় ২৮ মিলিয়ন দিনার ।এ ছাড়াও করোনভাইরাস মহামারীর কারনে এ খাতে কুয়েতের ৩০ শতাংশ মানুষ কাজ হারায়। সরকারের উচিত অতিসত্বর এ বিষয়টি নিয়ে কাজ করা।

Related News

Add Comment