ভিসা দালালদের কঠোর হুসিয়ারিঃ কুয়েতে নতুন রাষ্ট্রদূত

বাংলাদেশে ছুটিতে এসে আটকে থাকা প্রবাসীদের কুয়েতে ফিরিয়ে আনতে এবং কোম্পানীগুলোর সাথে যোগাযোগ করতে ২০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আকামায় রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে দূতালয় থেকে। এছাড়াও, দূতালয় থেকে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা হবে যেখানে বাংলাদেশে আটকে থাকা প্রবাসীরা তাদের কোম্পানীর নাম সহ বিস্তারিত তথ্য দিয়ে আবেদন করবে। দেশে কত জন প্রবাসী আছেন? কার আকামা শেষ হয়েছে তা কুয়েত দূতাবাস খুব সহজেই জানতে পারবে।

কুয়েতে বাংলাদেশী রাষ্ট্রদূত, মেজর জেনারেল মো.আশিকুজ্জামান বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন। “আমরা ভিসা জালিয়াতির কোন খবর পেলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে,”।

৯ সেপ্টেম্বর দুপুরে কুয়েতে অবস্থিত মিসিলা এলাকায় বাংলাদেশ দূতাবাসে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় প্রবাসী সাংবাদিকরা বর্তমান পরিস্থিতিতে কুয়েতে শ্রমিকদের এবং ছুটিতে থাকা প্রবাসী শ্রমিকদের সমস্যা তুলে ধরেন।

রাষ্ট্রদূত বলেন, প্রয়োজনে কুয়েতের ফ্লাইট সম্পর্কে বাংলাদেশ বিমান মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করা হবে। এখানে প্রবাসীদের বিষয়গুলি সম্পর্কে জানতে, আমি কোম্পানীর ব্রাকে ব্রাকে গিয়ে শ্রমিকদের সমস্যাগুলো শুনবো, এবং প্রবাসীদের হয়রানী ও তাদের কারও বিরুদ্ধে ভিসা জালিয়াতির অভিযোগ সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করব, এবং তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেব।

“আমরা অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা নিতে মিডিয়া সহ সকলের সহযোগিতা চাই।” আমি প্রবাসে আমার পরিবারের আর্থিক স্বচ্ছলতার জন্য কঠোর পরিশ্রম করি, আমি এমন কিছু করবো না যাতে দেশের সুনাম নষ্ট হয়, ভুলে গেলে চলবে না, আমরা প্রবাসে থাকা সবাই যে যাই করি না কেন, দিন শেষে কিন্তু বাংলাদেশের পরিচয় বহন করি।

এই সময় উপস্থিত ছিলেন, কুয়েত পেইজ ফর বাংলাদেশী ও বাংলাদেশী ইন কুয়েতের এডমিন প্যনেলের সদস্য , সাইফুল ইসলাম, মাই টিভির সাংবাদিক আল আমিন রানা, সাংবাদিক আ হ জুবেদ, সাংবাদিক শরীফ মিজান, জাগো নিউজের কুয়েত প্রতিনিধি সাদেক রিপন, সাংবাদিক মো. হেবজু, সাংবাদিক নাসরিন আক্তার মৌসুমী, আই এম এফরে সভাপতি আব্দুর রউফ মাওলা ও সাংবাদিক মাহমুদুর রহমান প্রমুখ।

Related News

Add Comment