সৌদি আরব প্রবেশের অনুমতি পেল বাংলাদেশসহ ২৫ দেশ

সৌদি এয়ারলাইন্স তাদের ওয়েবসাইটে বাংলাদেশ সহ সৌদি আরবে আসতে পারে এমন ২৫ টি দেশের একটি তালিকা দিয়েছে। ২ সেপ্টেম্বর এই তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

সৌদি এয়ারলাইনস বাংলাদেশ সহ ২৫ টি দেশ থেকে সৌদি আরব পৌঁছাতে পারে
সৌদি এয়ারলাইন্সের মাধ্যমে সৌদি আরবে যে 25 টি দেশে পৌঁছানো যাবে সেগুলি হ’ল:

বাংলাদেশ, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কুয়েত, ওমান, বাহরাইন, মিশর, লেবানন, তিউনিসিয়া, মরোক্কো, চীন, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ইতালি, স্পেন, জার্মানি, অস্ট্রিয়া, তুরস্ক, গ্রীস, ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, সুদান, ইথিওপিয়া, কেনিয়া, নাইজেরিয়া এবং ইন্দোনেশিয়া।

সৌদি আরব তার যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য যে বিশেষ শর্ত সরবরাহ করেছে তা নীচে দেয়া হলোঃ


1 / সকল যাত্রীদের অবশ্যই সৌদি স্বাস্থ্য বিশেষ স্বাস্থ্য ছাড়ের ফর্মটি পূরণ করতে হবে এবং বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পরে এটি স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রে জমা দিতে হবে।

2 / সকল যাত্রীদের অবশ্যই ৭ দিনের সেলফ কোয়ারান্টাইন পালন করতে হবে। (স্বাস্থ্যকর্মী যাদের কোভিড-১৯ নেগেটিভ সার্টিফিকেট আছে তাদের ক্ষেত্রে এটি তিন দিন)

3 / সকল যাত্রীদের অবশ্যই সৌদি তাত্মান এবং তাওয়াক্কাল্লান অ্যাপটি ফোনে আগে থেকেই ইনস্টল করা থাকতে হবে।

4 / সকল যাত্রীদের বিমানবন্দরে আসার ৮ ঘন্টা আগে তাতামান অ্যাপে তাদের বাড়ির অবস্থান নির্ধারণ করতে হবে।

5 / যে যাত্রীদের আগে কোভিড -১৯ এর কিছু লক্ষণ রয়েছে, তাদের নিজের দিকে মনোযোগ দেওয়া উচিত। ভ্রমণ চলাকালীন লক্ষণগুলি উপস্থিত হওয়ার সাথে সাথে মেডিকেল বা জরুরি কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ করুন।

6 / সকল যাত্রীকে অবশ্যই তাতাম্মান অ্যাপে প্রতিদিন নিজের স্বাস্থ্য পরীক্ষা  করতে হবে। এবং যখন তাদের নিজ নিজ বাসায় সেলফ কোয়ারান্টাইন চলবে তখন অবশ্যই কোভিড-১৯ প্রতিরক্ষামূলক ব্যাবস্থার মাঝে দিয়ে যেতে হবে যা ঐ সৌদি হেলথ ডিসক্লেইমার ফর্মে উল্লেখ ছিল।

8 / টিকিটে কি সাবধানতা উল্লেখ করা হয়েছে তা দেখতে এখানে ক্লিক করুন

সৌদি আরব ফিরে আসতে ইচ্ছুক যাত্রীদের জন্য সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের সরবরাহিত স্বাস্থ্য অস্বীকার ফর্মটি দেখতে এবং ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।

উল্লেখ্য, সৌদি আরবে কোভিড -19-এর পরে মানুষের জীবন স্বাভাবিক, তবে আন্তর্জাতিক বিমানগুলি এখনও চালু হয়নি ,সৌদি আরবের বিশেষ অসুস্থ রোগীদের সাথে বা ভিজিট ভিসার সাথে বর্তমানে সৌদি আরবের বিশেষ বিমানগুলিতে যাত্রীরা উচ্চমূল্যের টিকিটের বিনিময়ে দেশে ফিরে আসতে পারেন।

তবে কেউ বিশেষ ফ্লাইটে ভ্রমণ করতে পারবেন না। সৌদি আরব থেকে ছুটিতে যাওয়ার সময় যারা অসুস্থ বা যারা ভিজিট ভিসায় সৌদি আরবে এসেছিল এবং কোভিড -১৯ লকডাউনের মাঝখানে ধরা পড়েছিল কেবল তারাই বিশেষ বিমানটি ব্যবহার করতে পারবে।

এই সময়ে, বাংলাদেশে বসবাসরত অনেক সৌদি প্রবাসী বিভিন্ন উদ্বেগ এবং অনিশ্চয়তায় তাদের দিন কাটায়। অনেকে চিন্তিত যে তারা যদি কখনও সৌদি আরব ফিরে আসতে সক্ষম হয়। অনেকের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে এবং তাদের প্রসারিত করা যায় কি না তা নিয়ে তারা দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। যদিও এটি সর্বদা সৌদি আরবের কাছ থেকে নির্বিঘ্নে বলা হয়েছে, মালিকরা ইচ্ছা করলে যারা ছুটিতে আটকা পড়েছেন তারা ফিরে আসতে পারেন।

সর্বোপরি সময়টি সৌদি প্রবাসীদের পক্ষে মোটেই উপযুক্ত নয়। এই সমস্ত সমস্যার সমাধান কেবলমাত্র সৌদি আরবে আন্তর্জাতিক বিমান চালিয়েই পাওয়া যাবে।

১ এপ্রিল থেকে করোনাভাইরাস কারণে সৌদি আরবে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল বন্ধ রয়েছে। যা আজও বন্ধ রয়েছে। খুব শীঘ্রই বিশ্বের আকাশ খোলা হবে।

Related News

Add Comment