দুবাই দিয়ে কুয়েতে প্রবেশ !!

করোনার সময় যে সকল প্রবাসীরা বাংলাদেশে একটু শুঁখের জন্য কয়েক মাসের ছুটিতে গিয়ে আটকে আছে তাদের মধ্যে অনেকের ভিসার মেয়াদ শেষ আবার অনেকেই অনলাইনে আকামা নবায়ন করে কুয়েতের দেয়া আইনে ৯ মাসের অধিক সময় পার করেছে।
অনেক প্রবাসীর স্বপ্ন ছিল এবার ই শেষবার, বাংলাদেশ থেকে গিয়ে এক টানা ২ বছর বা ১ বছর করে একেবারে বাংলাদেশে চলে আসবে, সামান্য পুঁজি করেছে সেটা হয়তো এতো দিনে খরচ ও হয়ে গেছে, এখন তারা কিভাবে কুয়েতে প্রবেশ করে তার রাস্তা খুঁজেই পাচ্ছে না।
এদিকে কুয়েত সরকারের একেক সময়ে একেক আইনে প্রায় স্বপ্ন অনেকের ভেঙ্গেই যাচ্ছে, অনেকেই হয়তো কুয়েতের ভরসা ছেড়েই দিয়েছে, কি করবে বলেন ? ৭ থেকে ৮ মাস একজন প্রবাসী বসে খেলে পুঁজি থাকবে বলেন ?
এতদিন হয়তো অনেক প্রবাসী নিজের জন্য কিছুই করে নাই, যখন করবে তখন চলে এসেছে মহামারী করোনা ভাইরাস, এই করোনা ভাইরাসে লাখ লাখ প্রবাসীর স্বপ্ন মাটির সাথে মিশে গেছে।

হাজার স্বপ্নের মাঝে আবার কে বা কারা যেন বলছে দুবাই দিয়ে কুয়েত প্রবেশ করা যায়, অনেক ইন্ডিয়ান তো যাচ্ছে, তাহলে হয়তো আমরাও পারবো ??

কিছু কিছু ট্রাভেল এজেন্সি এই সুযোগ কাজেও লাগাচ্ছে , দুবাই ভিসা করিয়ে দেয়ার নাম করে ২০/৩০ হাজার টাকা হজম করে নিচ্ছে, পরে বলে দিচ্ছে যে কাজ হবে না, দুবাই ভিসা দিচ্ছে না।
তাহলে ইন্ডিয়ান রা কিভাবে যায়?? ইন্ডিয়া থেকে দুবাই যাওয়া আর আমরা বাংলাদেশ থেকে কলকাতা যাওয়া একি সমান, তারা ভিসার জন্য আবেদন করলেই তাদের ভিসা দিয়ে দিচ্ছে কিন্তু বাংলাদেশীদের জন্য হাজার অজুহাত !!

আমি জানি অনেকেই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে খাদেম ভিসা ২০ ও শোন ভিসা ১৮ আহলি, কোম্পানি, কিন্তু আমার অভিজ্ঞতায় বলছি তারা কেও ভিসা পাবে না, একমাত্র তাদেরকেই দুবাই ভিসা দিছে যাদের হাই প্রোফাইল আছে, যারা কুয়েতে ব্যবসা করে, আসলে যারা টুরিস্ট ভিসা পাওয়ার যোগ্যতা রাখে।

তাই আমার একটা অনুরোধ থাকবে, বিভিন্ন দালাল বা কারো কথায় কান না দিয়ে অপেক্ষা করুন , ইনশাল্লাহ অবশ্যই কুয়েত সরকার বাংলাদেশের জন্য ও বিমান চালু করে দিবে।

তবে এ সময়ে আমাদের ধৈর্য ধারণ করতে হবে, বাংলাদেশে যে কোন কাজে লেগে যেতে পারেন, বা ছোট ব্যবসা করার পরিকল্পনা ও করতে পারেন।
বাংলাদেশে আটকে থাকা সকল প্রবাসীদের জন্য রইলো শুভকামনা।

Related News

Add Comment